Saturday, October 22, 2022

এই গরমে ড্রাগন ফল খাবেন যেসব কারণে

একসময় শুধুমাত্র সুপারশপেই ড্রাগন ফল পাওয়া যেত। আজকাল অনেক বাজারেই এই ফল পাওয়া যায়। ফলটির চাষও বেড়েছে দেশে। অনেকে বাণিজ্যিকভাবে এই ফলের চাষ করছেন।

এই ফলটি স্বাস্থ্যের জন্য দারুন উপকারী। সাদা ও লাল রঙের সাসের এই ফলে ক্যালরির মাত্রা খুবই কম থাকে।পাশাপাশি রয়েছে একাধিক পুষ্টিগুণও।ড্রাগন ফল খাওয়ার বেশ কিছু উপকারিতা রয়েছে। যেমন-

ক্যানসার ও বার্ধক্য প্রতিরোধে: ড্রাগন ফলে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টি অক্সিড্যান্ট থাকে। এতে থাকা ফ্ল্যাভিনয়েড, ফেনলিক অ্যাসিড ও বিটাসায়নিনের মতো একাধিক অ্যান্টি অক্সিড্যান্ট কোষকে

‘ফ্রি র‌্যাডিক্যাল’থেকে সৃষ্টি হওয়া ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা করে। যার ফলে এই ফল খেলে একদিকে যেমন ক্যানসারের ঝুঁকি কমে, তেমনি অল্প বয়সে শরীরে বার্ধক্যের ছাপও রোধ হয়।

ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য : ডায়াবেটিস রোগীদের মধ্যে যে কোনও ফল খাওয়ার ব্যাপারেই সংশয় থাকে। ড্রাগন ফলে ফ্যাট বা স্নেহপদার্থের মাত্রা কম থাকে। পাশাপাশি এতে থাকে প্রচুর পরিমাণ ফাইবার থাকে।

ফাইবার সমৃদ্ধ খাবার পরিপাকের গতিকে ধীর করে, ফলে রক্তে শর্করার শোষণও হয় ধীরে ধীরে। এতে হঠাৎ করে শরীরে শর্করার পরিমাণ বৃদ্ধি পাওয়ার আশঙ্কা কমে।

কোষ্ঠকাঠিন্য কমাতে: ড্রাগন ফলে প্রচুর পরিমাণে প্রো-বায়োটিক থাকে। এই ধরনের উপাদান পেটে ল্যক্টো-ব্যাসিলাস জাতীয় ব্যাক্টেরিয়ার বৃদ্ধিতে সহায়তা করে। ফলে কোষ্ঠকাঠিন্য হ্রাস পায় ও হজম ভাল হয়।

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে: ড্রাগন ফলে যেমন অ্যান্টি-অক্সিড্যান্ট থাকে তেমনি প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন সি থাকে। ভিটামিন সি দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে। গরম পড়তে না পড়তেই ঘাম বসে সর্দি লাগা কমাতে সহায়তা করতে পারে ড্রাগন ফল।

রক্তশূন্যতার সমস্যায়: ড্রাগন ফল রক্তে আয়রনের ভারসাম্য বজায় রাখতে সহায়তা করে। আয়রনের মাত্রা বৃদ্ধি করার পাশাপাশি ড্রাগন ফলে যে ভিটামিন সি থাকে তা আয়রনের শোষণ ও কার্যকারিতা বৃদ্ধি করতেও সহায়তা করে। ফলে রক্তশূন্যতার সমস্যা কমে।

Latest news
Related news