Saturday, October 22, 2022

এবার অপু বিশ্বাসের প্রশংসা করে যা বললেন কলকাতার সুপারষ্টার দেব

কলকাতার সুপারষ্টার দেব এবার প্রশংসায় পঞ্চমুখ হলেন ঢালিউডের জনপ্রিয় অভিনেত্রী অপু বিশ্বাসের। বললেন, ‘অপু বিশ্বাস দিদির সঙ্গে এবারই আমার প্রথম দেখা। তিনি আমাদের মধ্যে উপস্থিত আছেন। এটা আমাদের জন্য অনেক সম্মানের।’ হায়দরাবাদের প্রসাদ ল্যাব বানজারা হিলসে ‘তেলেঙ্গানা বাংলা চলচ্চিত্র উৎসব-আয়না ২০১৮’ উদ্বোধন উপলক্ষে মঞ্চে উঠে একথা বলেন কলকাতার ‘খোকাবাবু’ দেব।

কলকাতার সুপারষ্টার দেব বলেন, ‘কলকাতা থেকে এত দূরে বাংলা ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে আসতে পেরে আমি আপ্লুত। আর এখানে আছেন বাংলাদেশের সেরা অভিনেত্রী অপু দি। তার অনেক সিনেমা আমি দেখেছি। তিনিতো বাংলাদেশে সিনেমা করে রেকর্ড করে ফেলেছেন।’

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন- ভারতে নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার সৈয়দ মোয়াজ্জেম আলী, দেব, রুক্মিণী মৈত্র, বিশ্বজিৎ চ্যাটার্জি, অপু বিশ্বাসসহ আরও অনেকে। উৎসবে ‘দুই বাংলা মৈত্রী পুরস্কার’ পেয়েছেন অপু বিশ্বাস ও দেব।

উৎসবে বাংলাদেশ ও ভারতের ১০টি চলচ্চিত্র প্রদর্শিত হবে। এর মধ্যে চারটি বাংলাদেশের, পাঁচটি কলকাতার ও একটি তামিলনাড়ুর চলচ্চিত্র। এই উৎসবে বাংলাদেশ থেকে শুভেচ্ছাদূত হিসেবে মনোনীত করা হয়েছে ঢাকাই ছবির অন্যতম জনপ্রিয় নায়িকা অপু বিশ্বাসকে।

উৎসবে অপু বিশ্বাস বলেন, ‘সম্মাননাকে সম্মানের চোখেই দেখতে হবে। তবে এই উৎসবে আমার সিনেমা থাকলে আরও বেশি ভালো লাগত। যা-ই হোক, এটি তো সিনেমাসংক্রান্ত পুরস্কার। এতেই আমি খুশি।’

উৎসবে বাংলাদেশের চারটি ছবি হলো ‘অজ্ঞাতনামা’, ‘খাঁচা’, ‘কালের পুতুল’ ও ‘ড্রেসিং টেবিল’। শুক্রবার গতকাল বিকেলে ‘আত্মজা’ ছবির প্রদর্শনীর মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠানের সূচনা হয়। ছবিতে অভিনয় করেছেন জয়াপ্রদা। অনুষ্ঠানে উপস্থিতও ছিলেন তিনি।

এরপর সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টায় প্রদীপ প্রজ্বালন করেন অতিথিরা। অনুষ্ঠানে ভারতে নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার সৈয়দ মোয়াজ্জেম আলী তাঁর বক্তব্যে দুই বাংলার সাংস্কৃতিক সম্পর্ক আরও সুদৃঢ় করার ওপর জোর দেন।

তিনি বলেন, ‘ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে সম্পর্ক ভালো। আরও ভালো করার জন্য দুই দেশকেই পদক্ষেপ নিতে হবে। কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাজ করতে হবে। এ ধরনের অনুষ্ঠান আরও হোক। বাংলার সংস্কৃতিকে সমৃদ্ধ করতে বাংলাদেশ সব সময় ভারতের সঙ্গে আছে।’

উৎসবের তত্ত্বাবধায়ক সুমনা কাঞ্জিলাল বলেন, ‘আমরা এই পুরস্কার দেওয়ার জন্য বাংলাদেশে বেশ কয়েকজনের কথা ভেবেছি। কিন্তু অপু বিশ্বাসকেই উপযুক্ত মনে হয়েছে। শুধু সিনেমার মানুষ বলে এই পুরস্কার দেওয়া হচ্ছে না অপুকে। এর বাইরেও একজন ব্যক্তিত্ববান ভালো মানুষ হিসেবে আমরা তাঁকে শুভেচ্ছাদূত মনোনীত করেছি এবং মৈত্রী পুরস্কার দিয়েছি।’

Latest news
Related news