আইপিএল নিলাম, কলকাতায় সাকিব–লিটন

Share

প্রথম দফায় ডাক পেলেন না। ভাবা হচ্ছিল, প্রথমবার আইপিএল খেলার স্বপ্ন দেখা লিটন দাস ও আইপিএলে ফেরার প্রতীক্ষায় থাকা সাকিব আল হাসান এবারও আইপিএলে দল পাবেন না। তবে তা আর হয়নি। দ্বিতীয় দফার ডাকে এই দুই ক্রিকেটার দল পেয়েছেন। সাকিব ও লিটন দুজনকেই তাঁদের ভিত্তিমূল্যে দলে ভিড়িয়েছে কলকাতা নাইট রাইডার্স।

লিটনের ভিত্তিমূল্য ছিল ৫০ লাখ রুপি। আর সাকিবের ভিত্তিমূল্য ১ কোটি ৫০ লাখ। বাংলাদেশের তৃতীয় ক্রিকেটার হিসেবে কলকাতার হয়ে খেলবেন লিটন। এর আগে কলকাতার হয়ে খেলেছেন সাকিব ও সাবেক অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা। কলকাতার হয়ে মাশরাফি খেলেছেন ২০০৯ সালে। কোচিতে হওয়া আইপিএলের সীমিত পরিসরের এই নিলামে বাংলাদেশের এই দুই ক্রিকেটারই শুধু দল পেয়েছেন।

লিটনের আইপিএল খেলার অভিজ্ঞতা নেই। তবে আইপিএলের অন্যতম অভিজ্ঞ ক্রিকেটার সাকিব। এই কলকাতার হয়ে পঞ্চাশ ম্যাচ খেলার অভিজ্ঞতা আছে তাঁর। ২০১১ সালে প্রথম আইপিএলে খেলেছিলেন সাকিব, কলকাতা নাইট রাইডার্সের (কেকেআর) হয়ে। ২০১২ সালে টানা দ্বিতীয় মৌসুম খেলার পর ২০১৩ সালে তিনি চোটের কারণে খেলতে পারেননি একটি ম্যাচও। তবে কলকাতার স্কোয়াডে ছিলেন।

২০১৪ থেকে ২০১৭ পর্যন্ত চার মৌসুম খেলার পর কলকাতা তাঁকে ছেড়ে দেয়। ২০১৮ ও ২০১৯ সালে তিনি খেলেন সানরাইজার্স হায়দরাবাদে। নিষিদ্ধ থাকার কারণে ২০২০ সালে আইপিএলে ছিলেন না বাংলাদেশের অলরাউন্ডার।

২০২১ সালে কলকাতায় আবারও ফেরেন তিনি। তবে প্রত্যাশামতো পারফরম্যান্স করতে পারেননি। সাকিব, লিটন দল পেলেও দল পাননি পেসার তাসকিন আহমেদ।

চলতি বছর দুর্দান্ত ছন্দে আছেন লিটন। ১৯ ম্যাচে ১৪০.২১ স্ট্রাইকরেটে করেছেন ৫৪৪ রান। গত টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ভারতের বিপক্ষে অনেকটা একাই ব্যাট হাতে লড়েছিলেন এই ওপেনার। অ্যাডিলেডে বাংলাদেশ দল ভারতের কাছে হারলেও, লিটনের ব্যাটিং মন কেড়েছিল সবার। বিশেষ করে ভারতের জয়ের নায়ক বিরাট কোহলির।

ম্যাচ শেষে ড্রেসিংরুমে ফেরার পথে তাই আলাদা করেই কোহলি শুভেচ্ছা জানিয়েছিলেন লিটনকে। আইপিএলে দল পাওয়ার পেছনে নিঃসন্দেহে চলতি বছরের দুর্দান্ত ফর্মের পাশাপশি ভূমিকা রেখেছে লিটনের সেই ইনিংস। লিটন আইপিএল খেলবেন বিশ্বমঞ্চে নিজেকে জাহির করতে। তবে সাকিবের ব্যাপারটা ভিন্ন। অভিজ্ঞ এই ক্রিকেটারকে লড়তে হবে আইপিএলে নিজের জায়গা ধরে রাখতে।

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *